সারাদেশে বিজয় উৎসব

ঠিকানা ডেস্ক : মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে শনিবার সারাদেশে উদযাপিত হয়েছে বিজয় দিবস। রাত ১২টা ১ মিনিটে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমের দিবসের সূচনা হয়। এর পর বিভিন্ন স্থানে শহীদ মিনার ও শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে প্রশাসন, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এ ছাড়া এ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, জাতীয় পতাকা উত্তোলন, আলোচনা সভা, কুচকাওয়াজ, শরীর চর্চা প্রদর্শনী, রক্তদান কর্মসূচি, চিত্রাঙ্কন ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এসব অনুষ্ঠান থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতিহত করার অঙ্গীকার করা হয়।
নারায়ণগঞ্জ :নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শনিবার ভোরে ফুল দিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা জানান নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া। ওই সময় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে করা হয় তোপধ্বনি। প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর চাষাঢ়ায় উপস্থিত হাজারো জনতা বিজয়স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সকাল সাড়ে ৬টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ফুল দিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা জানান, নারায়ণগঞ্জের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য হোসনে আরা বেগম বাবলী, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মঈনুল হক, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা এহতেশামুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের মধ্যে সমকাল সুহৃদ সমাবেশও বিজয়স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।
সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) :সোনারগাঁও উপজেলা শহীদ মজনু পার্কে বিজয়স্তম্ভে ফুল দিয়ে একাত্তরের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সোনারগাঁ প্রেস ক্লাব, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। সকালে বিজয়স্তম্ভে ও বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে নারায়ণঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল কায়সার, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, আজহারুল ইসলাম মান্নান, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহীনূর ইমলাম, সোনারগাঁ প্রেস ক্লাবের সভাপতি অসিত কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক আল আমিন তুষার ও সদস্যরাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বিজয়স্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : রূপগঞ্জের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে। এসব অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান ভূঁইয়া, নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম প্রমুখ। এ ছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে বের করা হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা।
ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ শহরের পাটগুদাম ব্রিজ মোড় এলাকার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা, বিজয় শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন বিজয় দিবস উদযাপন করেছে। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধে মুক্তিযোদ্ধা ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, ময়মনসিংহ বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার জি এম সালেহ উদ্দিন, ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়। এদিকে, ময়মনসিংহ সমকাল সুহৃদ সমাবেশ সকালে ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাবের সামনে জমায়েত হয়। পরে বিজয় শোভাযাত্রার মাধ্যমে শহরের পাটগুদামে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ সময় ময়মনসিংহ ব্যুরো স্টাফ রিপোর্টার মীর গোলাম মোস্তফা, ময়মনসিংহ সমকাল সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি মো. আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
কিশোরগঞ্জ : জেলা প্রশাসনের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ, জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কুচকাওয়াজ, শিশু-কিশোর সমাবেশ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, শুটিং প্রতিযোগিতা, প্রীতি ফুটবল ম্যাচ, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, হাসপাতাল, জেলখানা ও এতিমখানায় বিশেষ খাবার পরিবেশন, মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা ইত্যাদি। বিকেলে জেলা প্রশাসক আজিমুদ্দিন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) : বাঞ্ছারামপুরে ভোর ৬টায় মাওলাগঞ্জ বাজার এলাকার স্মৃতিস্তম্ভে ফুলের তোড়া দিয়ে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। স্থানীয় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শারীরিক কসরত, নৃত্য, যেমন খুশি তেমন সাজো ও ছোট নাটক উপস্থাপন করে। এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য এবি তাজুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম, ইউএনও শরিফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসু ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
জামালপুর : জামালপুর শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সরকারি-বেরসকারি প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রেস ক্লাব পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবদুল হাকিম স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। স্টেডিয়ামে স্বেচ্ছায় রক্তদান ও মুক্তিযোদ্ধাদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। বেলা ১১টায় শহরের দয়াময়ী এলাকায় মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শনী হয়। এ ছাড়া রচনা প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান হয়। বিকেলে শহর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকী মিল্লাহ। এ ছাড়া জামালপুরের নান্দিনা গোড়াকান্দির হাজি আবদুল গফুর (র.) অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী স্কুলে আলোচনা সভা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। মাওলানা খন্দকার মোস্তফা আকীল বেলার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন নান্দিনা শেখ আনোয়ার হোসেন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মোজাফফর হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আবদুল কাদের, আবদুর রশিদ খান, সমাজসেবক মাহবুবুল আলম মামুন প্রমুখ।
ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) : ত্রিশালে উপজেলা প্রশাসন ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সকালে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে প্রথমে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন, ইউএনও আবু জাফর রিপন, ভাইস চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম, থানার ওসি জাকিউর রহমান এবং পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
এছাড়া নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শহীদ মালেকের কবর জিয়ারত ও রায়েরগ্রাম বধ্যভূমির শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয় র‌্যালি ও নজরুল একাডেমি মাঠে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের শারীরিক কসরত প্রদর্শিত হয়েছে।
এদিকে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজয়স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ, বিজয় র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. এএইচএম মোস্তাফিজুর রহমান। এতে প্রধান বক্তার বক্তৃতা করেন নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা মামুনুর রশীদ। শিক্ষক সমিতির সভাপতি তপন কুমার সরকারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম। এতে আলোচক ছিলেন প্রক্টর ড. মো. জাহিদুল কবীর ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর।
টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে পৌর উদ্যানের শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন, পুলিশ সুপার মাহবুব আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান খানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মী ও মুক্তিযোদ্ধা-জনতা শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।
আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) : আখাউড়ায় উপজেলা প্রশাসন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন, আখাউড়া প্রেস ক্লাব ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে দিনটি পালন করে। সকালে আখাউড়া কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন সংগঠন ও সর্বস্তরের মানুষ। পরে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে শারীরিক কসরত, আলোচনা সভা, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী : রাজশাহী কলেজের শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। এরপর বিএনপির পক্ষ থেকে রাসিক মেয়র ও নগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সকালে নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পাশে বঙ্গবন্ধু চত্বরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।
খুলনা :খুলনার গল্লামারী শহীদ স্মৃতিসৌধে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, খুলনা জেলা প্রশাসন, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, খুলনা প্রেস ক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। সকাল সাড়ে ৮টায় খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শনীর আয়োজন করে জেলা প্রশাসন। বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সন্তানদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, পুলিশ কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ প্রমুখ। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সকালে শোভাযাত্রা এবং মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য অদম্য বাংলার পাদদেশে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। খুলনা সিটি করপোরেশন সকাল ৯টায় নগর ভবনে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
সিলেট : সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বাস্তবায়ন পরিষদের শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে শুরু হয় দিনের কর্মসূচি। তারপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ও মহানগর ইউনিট। এরপর একে একে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি, জেলা প্রশাসক, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, পুলিশ সুপার, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।
বরিশাল : শহীদ স্মৃতি স্তম্ভে প্রথম পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। এরপর বিভাগীয় কমিশনার মো. শহীদুজ্জামান, পুলিশের রেঞ্জ ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার এসএম রুহুল আমীন, জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান, সিটি করপোরেশনের মেয়র আহসান হাবিব কামাল, শিক্ষা বোর্ড শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় দিবসটি উপলক্ষে বিজয় র‌্যালি ও কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান করেছে। সমকাল সুহৃদ সমাবেশের শোভাযাত্রা শেষে সকাল সাড়ে ৮টায় শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধা জানানো হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস এমপি, মহানগরের সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর, যুগ্ম সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নেতৃত্বে সকাল ৯টায় জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল, দক্ষিণ জেলা সভাপতি এবায়দুল হক চান, উত্তর জেলা সভাপতি মেজবাহউদ্দিন ফরহাদের নেতৃত্বে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন বেলা সোয়া ১১টায়।
বানারীপাড়া (বরিশাল) : সকালে বানারীপাড়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশন মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস। পরে একই স্থানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো. হাবিবুর রহমান খান, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. গোলাম ফারুক, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার তরুণেন্দ্র নারায়ণ ঘোষ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা, পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল, নারী ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দা তাসলিমা হোসেন ফ্লোরা প্রমুখ।