সিংহাসন ছাড়ার দিন ঘোষণা জাপান সম্রাটের

জাপানের জনপ্রিয় সম্রাট আকিহিতো আগামী বছরের ৩০ এপ্রিল সিংহাসন ছেড়ে দেবেন। দেশটিতে গত দুই শতাব্দীর মধ্যে আকিহিতোই প্রথম সম্রাট, যিনি স্বেচ্ছায় সিংহাসন ছাড়ছেন।

সিএনএন-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, আজ শুক্রবার জাপানের ইমপিরিয়াল হাউস কাউন্সিলে সম্রাট আকিহিতোর সিংহাসন ছাড়ার এই দিন নির্ধারণ হয়। পরে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে সম্রাটের সিংহাসন ছাড়ার দিন ঘোষণা করেন।জাপানের সম্রাট আকিহিতো ও সম্রাজ্ঞী মিচিকো। ছবি: রয়টার্স

প্রতিবেদনে বলা হয়, বয়স ও রুগ্ণ স্বাস্থ্যের কারণে দায়িত্ব পালন করা কঠিন হয়ে পড়বে, এই আশঙ্কা থেকে গত বছরের আগস্টে সিংহাসন ছাড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন আকিহিতো। টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে আকিহিতো এই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। টেলিভিশনে দেওয়া ওই ভাষণটি ছিল আকিহিতোর দেওয়া তৃতীয় ভাষণ। জাপানে প্রচলিত আইনে সম্রাটের সিংহাসন ছাড়ার বিধান না থাকায় দেশটির আইনজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞদের দিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। পরে চলতি বছরের শুরুর দিকে জাপানের পার্লামেন্টে সম্রাট আকিহিতোর সিংহাসন ছাড়ার বিল পাস হয়। এভাবেই আইন করে সম্রাট আকিহিতোর সিংহাসন ছাড়ার সুযোগ করে দেয় সরকার।জাপানের ইমপিরিয়াল হাউস কাউন্সিলে সম্রাট আকিহিতোর সিংহাসন ছাড়ার দিন নির্ধারণের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, সম্রাটের পরিবারের সদস্যসহ কাউন্সিলের সদস্যরা। ছবি: এএফপিবিলে বলা হয়, আইন আকারে বিল প্রকাশের পরের তিন বছরের মধ্যে ৮৩ বছর বয়সী সম্রাট আকিহিতো স্বেচ্ছায় সিংহাসন ছাড়তে পারবেন। তখন রানির কর্তৃত্বও খর্ব হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আকিহিতো যদি সিংহাসন ছেড়ে দেন, ১৮১৭ সালের পর এটিই হবে প্রথম ঘটনা। ওই বছর সম্রাট কোকাকু সিংহাসন ছেড়ে দিয়েছিলেন। জাপানের প্রচলিত আইন অনুযায়ী সম্রাট মৃত্যুর আগে পর্যন্ত সিংহাসনে থাকবেন।জাপান সম্রাটের পরিবার। ছবি: বিবিসি থেকে নেওয়াপ্রতিবেদনে বলা হয়, আকিহিতো তাঁর ভাষণে বলেছিলেন, তাঁর হৃদপিণ্ডে অস্ত্রোপচার হয়েছে। এ ছাড়া তিনি ক্যানসারেরও চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাবা সম্রাট হিরোহিতোর মৃত্যুর পর ১৯৮৯ সালে তিনি সিংহাসনে বসেন।

জাপানের আইন অনুযায়ী, কেবল সম্রাটের উত্তরসূরি কোনো পুরুষ সদস্যই পরবর্তী সম্রাট হবেন। সে অনুযায়ী, আকিহিতোর ছেলে ৫৭ বছর বয়সী যুবরাজ নারুহিতো হচ্ছেন দেশটির পরবর্তী সম্রাট।