সিটি কমিশনার অফিসের লিগ্যাল অ্যাডভাইজর কুলাউড়ার রোহামা

ঠিকানা রিপোর্ট : নিউইয়র্ক সিটি কমিশনার অফিসে লিগ্যাল অ্যাডভাইজর হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়ার মেয়ে রোহামা সুলতানা সারা। সম্প্রতি তিনি এই নিয়োগ লাভ করেন।
রোহামা সুলতানা এ বছর নিউইয়র্ক ল’ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। তিনি লিগ্যাল অ্যাডভাইজরের পাশাপাশি একজন ইমিগ্রেশন ল’ ইয়ার হিসেবেও কাজ করছেন।
রোহামার বাড়ি কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী পাইকপাড়া গ্রামের মোল্লাবাড়ি। তার বাবা পাইকপাড়া এমএ আহাদ আধুনিক কলেজের প্রতিষ্ঠাতা, কলেজ বাস্তবায়ন কমিটির চেয়ারম্যান ও ভূমিদাতা, সিলেট পোস্ট অফিসের প্রাক্তন ইন্সপেক্টর, শিক্ষানুরাগী নিউইয়র্ক প্রবাসী মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ। নিউইয়র্ক সিটি স্কুলের শিক্ষক, আন্তর্জাতিক রোটারিয়ান ক্লাবের সদস্য, সাবেক সরকারি কর্মকর্তা সালমা সুলতানা রোহামার গর্বিত মাতা।
রোহামা ছোটবেলা থেকেই ছিলেন মেধাবী। প্রাথমিক থেকে শুরু করে সকল পরীক্ষায় কৃতিত্ব দেখান। নিউইয়র্ক সিটি ট্যালেন্ট স্কুলে শিক্ষাজীবন শুরু। নিউইয়র্ক সিটি বেস্ট স্কুলে অধ্যয়নরত অবস্থায় স্কলারশিপ নিয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। নিউইয়র্ক ল’ কলেজ থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হন এবং ইমিগ্রেশন ল’ ইয়ার হিসেবে তার আত্মপ্রকাশ ঘটে। সর্বশেষ নিউইয়র্ক সিটি কমিশনার অফিসে লিগ্যাল অ্যাডভাইজর হিসেবে নিয়োগ পান। জীবনে তার এই সফলতার পেছনে পিতা-মাতার অবদান অপরিসীম বলে জানান। তিনি আত্মীয়স্বজনসহ সবার দোয়া কামনা করেছেন। রোহামার দাদা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ মো. আব্দুল হামিদ। রোহামার নানার বাড়ি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হবিবপুর গ্রামে। নানা আমেরিকা প্রবাসী আবুল খায়ের চৌধুরী ছিলেন সিলেট কমার্শিয়াল কলেজের প্রফেসর।
রোহামার এই সাফল্য বাংলাদেশি কমিউনিটির অনেকের মধ্যে আগ্রহ তৈরি করেছে। পাশাপাশি নতুন প্রজন্মকে আরো এগিয়ে যেতে উৎসাহিত করছে।