সিলেটের চিঠি

প্রিয় পাঠক, সপ্তাহান্তে ‘সিলেটের চিঠি’ পাঠে আপনাদের আবারো স্বাগত জানাচ্ছি। মন ভালো হওয়ার মতো খবর খুব নেই। ক্ষুব্ধ, নিরাশ মানুষ। চোখেমুখে সারাক্ষণ লেপ্টে থাকে অনিশ্চয়তার ছায়া। মানুষ বলছে, বিশ সাল ‘বিষে’ ভরা। প্রতিদিন বাড়ছে উদ্বেগ, প্রতিদিন মানুষ মুখোমুখি হচ্ছে নতুন নতুন মন খারাপের।
গেল সপ্তাহে সিলেটে দাপিয়ে বেড়িয়েছে জঙ্গি আটক এবং হামলার আশঙ্কার খবর। ১২ আগস্ট ভোররাতে বোমা তৈরির সরঞ্জামসহ আটক করা হয় নব্য জেএমবির সিলেটের আঞ্চলিক প্রধান, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাইমুজ্জামান, সানাউল ইসলাম সাদী, মদনমোহন কলেজের শিক্ষার্থী মির্জা সায়েম, সিএনজি চালক জুয়েল ও রুবেলকে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্রমতে, শাহজালাল (রহ.) এর মাজারসহ ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে হামলার পাশাপাশি আইএসের ঘোষিত ‘বেঙ্গল উলায়াত’ এর জানান দেয়ার পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। এরপর থেকে বাড়তি সর্তকতা জারি হয়েছে সবখানে।
বন্ধুগণ, এদিকে প্রকোপ কমলেও থেমে নেই করোনার সংক্রমণ। প্রতিদিন আক্রান্ত হওয়ার খবর আসছে। তবু জীবন-জীবিকার পেছনে মানুষের ছুটে চলা থেমে নেই। তবে, করোনার নানাবিধ সংকটের মুখেও বিপদাপন্ন মানুষের পাশে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের সহযোগিতার বিষয়টি ইতিবাচকভাবে আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে, সিলেট অঞ্চলের প্রবাসীরা নিজ নিজ এলাকায় দরিদ্র-কর্মহীন মানুষকে সহায়তা করে চলেছেন সেই শুরু থেকেই। কেউ চিকিৎসায়, কেউ নগদ টাকা আবার কেউ খাদ্য সামগ্রী দিয়ে স্থানীয় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন।
করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে পৃথিবীজুড়ে প্রতিদিনই আলোচিত হচ্ছে নানা খবর। এর মধ্যে আবুধাবিতে ভেক্সিনের পরীক্ষায় সিলেটের যুবক রাহাত আহমেদ রফির অংশ নেয়ার খবরে আনন্দ ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয়দের মাঝে। রাহাত সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লক্ষ্মীপ্রসাদ ইউনিয়নের আব্দুল মতিনের ছেলে। কয়েক বছর আগে আবুধাবিতে পাড়ি দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন তিনি। জানা গেছে, মানুষের কল্যাণে পাশে থাকার অভ্যাস তার পুরোনো। দেশে থাকতে জড়িত ছিলেন রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির সাথেও।
বন্ধুরা, করোনার কারণে ৫ মাস বন্ধ থাকার পর সিলেট-তামাবিল স্থল বন্দরে আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম শুরু হয়েছে ১৭ আগস্ট থেকে। এভাবেই ধীরে ধীরে প্রত্যেক দপ্তর সচল হওয়ার পথে এখন। আবার সেই করোনার সংক্রমণ এড়াতে সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওর পর্যটনকেন্দ্রে পর্যটকদের রাত্রি যাপন নিষিদ্ধ করেছে স্থানীয় প্রশাসন।
প্রিয় পাঠক, এর মধ্যে সুসংবাদ হলো মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সিলেট বিভাগের ৪ টি জেলাকেই এ গ্রেডে উন্নীত করেছে। ফলে, সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা এবার বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করছেন সবাই।
বন্ধুরা, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার এই সময়ে সিলেটেও অনলাইনে রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক কার্যক্রম চলছে পুরোদমে। জুম, স্ট্রিম ইয়ার্ড ইত্যাদি অ্যাপস ব্যবহার করে প্রতিদিন বিকেল গড়ালেই ভার্চুয়াল দুনিয়া সরগরম হয়ে উঠে। আর এর মাধ্যমে যুক্ত হচ্ছেন পৃথিবীর নানাপ্রান্তের গুনীজন। রাজনৈতিক সভা সমাবেশও অনেকটা অনলাইনে জমে উঠেছে। ফলে, ভিন্ন এক আবহে কাটছে মানুষের দিন। নতুন এক স্বাভাবিক পরিস্থিতির দিকে এগুচ্ছে সবাই।
পাঠক, আগামী সপ্তাহে আরো কিছু খবরাখবর নিয়ে হাজির হবো আপনাদের সামনে। সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ ও নিরাপদ থাকবেন।

  • প্রণবকান্তি দেব