সেরেনাতে ধরাশয়ী নাম্বার ওয়ান

স্পোর্টস ডেস্ক : ভেনাস উইলিয়ামসকে রীতিমতো উড়িয়ে শেষ ষোলোতে নাম লেখান সিমোনা হালেপ। তার মতো বড় তারকাকে সহজে কাত করতে পারায় আত্মবিশ্বাসও কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছিল এই নাম্বার ওয়ান তারকার। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালের ওঠার কাজটা যে মোটেও সহজ হবে না, সেটা হয়তো ভাবতে পারেননি। প্রতিপক্ষ সেরেনা উইলিয়ামসের নাম শুনেও বিন্দুমাত্র ঘাবড়ে যাননি হালেপ। উল্টো যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণকলিকে ছুড়ে দেন চ্যালেঞ্জ। কথায় আর কাজে মিলল না গত ২১ জানুয়ারি মেলবোর্নে হালেপকে ৬-১, ৪-৬, ৬-৪ গেমে হারিয়ে শেষ আটের টিকিট কাটলেন সেরেনা। শীর্ষ বাছাইয়ে একে হালেপ আর সেরেনার অবস্থান ১৬। কোর্টে নামার আগে নিশ্চয়ই টেনশন করেছেন। কারণ এর আগে এক নাম্বার তারকার মুখে পড়েননি সেরেনা। তা ছাড়া সেরা দশের খেলোয়াড়দের বিপক্ষেও সেরেনার অতীতচ জয়ের হাসি নিয়ে বললেন, এটা সত্যিই খুব টেনশনের একটা ম্যাচ ছিল। যাক আপাতত সেটা দূর হয়েছে।

টেনিসকে যেন নতুন করে জানা শুরু করেছেন সেরেনা। মা হওয়ার কারণে লম্বা একটা সময় কোর্টের বাইরে কাটিয়েছেন। সে দিনগুলো বড্ড কঠিন ছিল, প্রায় সময় বিভিন্ন সাক্ষাৎকারেও বর্ণনা করেছেন। তারপর নতুন করে সংগ্রাম। ওজন কমিয়ে কোর্টে ফেরা। আবারও চমকে দেওয়া, এখন তার কাছে মিরাক্কেল মনে হচ্ছে, আমি এমন একজন যোদ্ধা, যে কখনোই নিজেকে বড় করে দেখে না। আমি প্রতিটি পয়েন্টের জন্য কঠিন পরিশ্রম করি। আসলে এই পর্যায়ে (কোয়ার্টার ফাইনাল) আসা আমার কাছে মিরাক্কেল মনে হচ্ছে। আমি এমন কিছু করতে চাই যেটা উপভোগ্য হবে।

এখন পর্যন্ত সাতটি অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতেছেন সেরেনা। ফলে মেলবোর্নের কোর্ট ভালো করেই চেনা তার। এবার জিততে পারলে সব মিলিয়ে ২৪টি গ্র্যান্ডসøাম ঝুলিতে পুরবেন। পাশাপাশি সর্বাধিক মুকুট জেতা মার্গারেট কোর্টের রেকর্ডে ভাগ বসাবেন তিনি। সেমিতে ওঠার পথে সেরেনার প্রতিপক্ষ ক্যারোলিন প্লিসকোভা। তাকে টপকাতে পারলে আরেকটা শিরোপার একেবারে কাছাকাছি চলে যাবেন ৩৭ বছর বয়সী এই টেনিস তারকা। এ নিয়ে ৫০তম গ্র্যান্ডসøামের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন সেরেনা। জানালেন মেলবোর্নের কোর্টের প্রতি নিজের ভালোলাগার কথা, আমি টেনিস খেলতে ভালোবাসি। এখানে আসতে পছন্দ করি, আসলে মেলবোর্নে কোর্টে খেলতে খুব ভালো লাগে। আবারও ফিরতে চাই এখানে।

এ দিকে দিনের আরেক ম্যাচে সেভাসটোভাকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখালেন নাওমি ওসাকা। গত বছর ইউএস ওপেনের ফাইনালে সেরেনাকে হারিয়ে প্রথম জাপানি হিসেবে গ্র্যান্ডসøাম জেতা নাওমি আরেকটা নতুন রেকর্ডে পা রাখলেন। সেমিফাইনালের পথে তার সামনে বাধা ইউক্রেনের ইলিনা। তবে কোয়ার্টারের টিকিট হাতে পেয়ে আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়েছে নাওমির। গত বছরের চেয়ে এবার আরও বেশি রাঙাতে চান, এটা আমার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। আমি মনে করি গত বছরের চেয়ে এ বছর আরও বেশি কিছু অর্জন করতে পারব।