সৌদিতে জন্ম, যুক্তরাষ্ট্রে বেড়ে ওঠা তরুণ উদ্যোক্তা ফহিমের অজানা কথা

শিউলি রহমান: সৌদি আরবে বাংলাদেশি বাবা-মায়ের সংসারে জন্ম তরুণ প্রযুক্তি উদ্যোক্তা ফাহিম সালেহের। জন্মের পর পরিবারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে চলে যান তিনি। সেখানেই তার বেড়ে ওঠা ও পড়াশোনা। পড়াশোনা শেষে ফাহিম সালেহ নিউইয়র্কেই বসবাস করতেন।
মাত্র ৩৩ বছর বছরের ছোট জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটল তরুণ এই উদ্যোক্তার। নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় ১৪ জুলাই বিকেলে বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং সার্ভিস পাঠাও-এর এই সহ-প্রতিষ্ঠাতার খণ্ড-বিখণ্ড মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের জেরে পেশাদার খুনীর দল তাকে খুন করেছে।
বিল গেটস কিংবা মার্ক জাকারবার্গ হতে পারতেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত তরুণ এই উদ্যোক্তা। কিন্তু তিনি হয়ে গেলেন লাশ, শরীরের ছিন্নভিন্ন টুকরোগুলো নিয়ে তার প্রাণহীন দেহটা পড়ে রইলো নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে।
ফাহিমের মৃত্যুর খবরটা আসার আগে দেশের খুব বেশি মানুষ তার নাম জানতেন না। কারণ আড়ালে থেকেই কাজ করতে পছন্দ করতেন তিনি। পাঠাওয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা তিনি, পরে নিজের অংশের শেয়ার বিক্রি করে পৃষ্ঠপোষক পদে ছিলেন। জোবাইক, যাত্রী-সহ আরও কিছু দারুণ প্রোজেক্টে তিনি ছিলেন বিনিয়োগকারী। এর বাইরে নাইজেরিয়াতে গোকাডা এবং কলম্বিয়াতে পিকঅ্যাপ নামে আরও দুটি রাইড শেয়ারিং কোম্পানি শুরু করেছিলেন, ভালো মুনাফাও করেছিলেন সেখান থেকে।
ফাহিমের বাবা এবং মা দুজনেই ছিলেন বাংলাদেশি। ফাহিমের জন্ম ১৯৮৬ সালে। চট্টগ্রামের স্বদ্বীপের হরিশপুর গ্রামের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার সালাহউদ্দিন আহমেদ বিশ্বখ্যাত আইবিএম করপোরেশনের অ্যাডভাইজার হিসেবে আমেরিকায় চাকরি করতেন। আইবিএম থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করতেন নিউইয়র্ক থেকে দেড়শ কিলোমিটার উত্তরের ডাচেস কাউন্টির ফুকেটসি এলাকায়। স্ত্রী রায়হানা, দুই কন্যা অ্যাঞ্জেলা ও রুবি এবং একমাত্র পুত্র ফাহিম সালেহকে নিয়ে সালাহউদ্দিন আহমেদের চমৎকার সুখী সংসার। এক মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন তিনি।
সৌদি আরবে ফাহিমের জন্মের পরে তাদের পরিবার আমেরিকা চলে গিয়েছিল। ফাহিমের শৈশব-কৈশোরের সবটা তাই আমেরিকাতেই কেটেছে। স্কুল এবং মাধ্যমিক পর্যায়ের লেখাপড়া অত্যন্ত সফলতার সাথে শেষ করে তিনি বেন্টলি ইউনিভার্সিটিতে ইনফরমেশন সিস্টেমে গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৯ সালে গ্রাজুয়েশন শেষ করার পর থেকে চাকরি খুঁজছিলেন। নিউইয়র্কের পাশাপাশি তিনি বোস্টনের বিভিন্ন কোম্পানিতেও চাকরির আবেদন করেন। ওই সময় তিনি চাকরিও পেয়ে যান।
কিন্তু জন্ম থেকে নিউইয়র্কের সাথে অন্যরকমের এক মায়ায় জড়িয়ে যাওয়া ফাহিম বিশ্বের নিউইয়র্ক শহর ছাড়তে চাননি। তাই বোস্টনের খ্যাতনামা একটি কোম্পানির অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার হাতে পাওয়ার পর যোগদান করার জন্য দুই সপ্তাহ সময় চেয়ে নিয়েছিলেন। ওই দুই সপ্তাহের মধ্যেই তিনি তৈরি করেন প্রাংক ডায়াল ডট কম নামের একটি ওয়েবসাইট। যে ওয়েবসাইটটি খুবই অল্প দিনের মধ্যেই জনপ্রিয়তার তুঙ্গে উঠে।
দুনিয়ার নানা দেশের হাজারো মানুষ প্রাংক কল কেনার জন্য শত শত ডলার খরচ করতে থাকেন। এই সময় বেশ কিছু ওয়েব অ্যাডও তৈরি করেছিলেন তিনি। ইনফরমেশন টেকনোলজিতে উচ্চতর ডিগ্রি নেয়া ফাহিম সালেহের সঙ্গে নাইজেরিয়ার এক তরুণও লেখাপড়া করতেন। দুজনে মিলে ২০টি ওয়েবসাইট তৈরি করেন। কিশোরদের জন্য তৈরি করা এসব ওয়েব থেকে বছরে অন্তত তিন লাখ ডলার আয় হতো তাদের যৌথ মালিকানাধীন কোম্পানির। প্রাংক ডায়ালের মতো ওয়েবডেভেলপ করে এই কোম্পানির আয় রাতারাতি বেড়ে যায়। দুহাতে প্রচুর ডলার আসতে থাকে ফাহিমের। তিনি চাকরিতে যোগ না দিয়ে পুরোপুরি ওয়েব ডেভেলপার হিসেবে কাজ করতে থাকেন। কোম্পানির সমৃদ্ধিতে আত্মনিয়োগ করেন ফাহিম।
২০১৪ সালে বাংলাদেশে এসেছিলেন ফাহিম। ওই সময়ে যুক্ত হন রাইড শেয়ারিং কোম্পানি পাঠাওয়ের সঙ্গে। ২০১৫ সালে যখন বাইক রাইড শেয়ারিং নিয়ে কারো তেমন কোনো ধারণাই ছিল না, তখন মাত্র ১০০টি বাইক নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল পাঠাও। সেই পাঠাও এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রাইড শেয়ারিং কোম্পানি, প্রায় ১ লাখ রাইডার কাজ করেন পাঠাওয়ে, প্রায় চার হাজার কোটি টাকা এই কোম্পানির মূল্যমান, কয়েক শ কোটি টাকা ইনভেস্টমেন্ট। সবচেয়ে বড় কথা হলো, পাঠাওয়ের আগমনের কারণে অজস্র মানুষ অর্থনৈতিকভাবে উপকৃত হয়েছে। বেকার যুবকরা রাউড শেয়ারিংয়ে নাম লিখিয়েছে, মোটরসাইকেলের বিক্রি বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ।
বাংলাদেশে পাঠাও প্রতিষ্ঠার সঙ্গে ফাহিম সালেহের সাথে আরো দুজন ছিলেন। যাদের কাছে পরবর্তী সময়ে ফাহিম সালেহ তার কিছু শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে নিউইয়র্কে ফিরে যান। তবে থেমে থাকেননি তিনি। এরপর পাঠাও এর আদলে অন্য দেশে ব্যবসা প্রসারের চিন্তাভাবনা শুরু করেন ৩৩ বছর বয়সী এ প্রযুক্তি উদ্যোক্তা।
জানা গেছে, বাংলাদেশ ছাড়াও নেপাল, দক্ষিণ আমেরিকার দেশ কলম্বিয়া ও আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় আরও দুটি রাইড শেয়ারিং কোম্পানির সহ-প্রতিষ্ঠাতা তিনি। নাইজেরিয়ায় চালু করা ‘গোকাডা’ ওই দেশের বর্তমান সময়কালের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং অ্যাপ। অত্যন্ত মেধাবী ফাহিম সালেহের স্বপ্ন ছিল রাইড শেয়ারিং অ্যাপসকে ভিন্নমাত্রার উচ্চতায় নিয়ে যাবেন। তার আশা ছিল ইন্দোনেশিয়ার ওজেকের মতো পাঠাও-ও একদিন দারুণ এক সুপার অ্যাপে পরিণত হবে। শুধু রাইড শেয়ারিংই নয়, পেমেন্ট এবং ই-কর্মাসও করা যাবে এই অ্যাপসের মাধ্যমে। এজন্য নানাভাবে কাজ করছিলেন তিনি। অ্যাপসের মানোন্নয়নে রাতে দিনে পরিশ্রম করছিলেন। নিউইয়র্ক শহরকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন ফাহিম সালেহ।
বিবিসি তাদের এক প্রতিবেদনে ঢাকায় পাঠাও রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের কর্মকর্তা ওসমানের বরাত দিয়ে জানায়, বাংলাদেশে অ্যাপ-ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং পাঠাও প্রতিষ্ঠার পর থেকে ফাহিম সালেহ চেয়েছিলেন আফ্রিকা মহাদেশে ব্যবসা বিস্তার করতে।
এর অংশ হিসেবে ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে নাইজেরিয়ায় ‘গোকাডা’ নামে একটি রাইড শেয়ারিং সার্ভিস চালু করেন। তার সাথে সহপ্রতিষ্ঠাতা হিসেবে আরো একজন ছিলেন।
ফাহিম সালেহের মালিকানাধীন ‘গোকাডা’ সার্ভিস ডেলিভারিতে এক হাজার মোটরসাইকেল রয়েছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠার এক বছরের মধ্যেই সংকটে পড়ে তারা। কারণ নাইজেরিয়ার সরকার মোটরসাইকেলে রাইড শেয়ারিং নিষিদ্ধ করে।
টেককাবাল নামে নাইজেরিয়ার একটি প্রযুক্তি বিষয়ক গণমাধ্যম তাদের প্রতিবেদনে বলছে, সংকটে পড়ার আগে এক বছরেই ‘গোকাডা’ ৫৩ লাখ ডলার আয় করে। যাত্রী পরিবহন নিষিদ্ধ হয়ে গেলে ‘গোকাডা’ পার্সেল ডেলিভারি সার্ভিস চালু করে। বর্তমানে নাইজেরিয়ার রাজধানী লাগোসে তাদের ১০০০ মোটরসাইকেল রয়েছে।
পিতা-মাতা নিউইয়র্ক থেকে দেড়শো মাইল দূরে থাকেন। অথচ ফাহিমকে প্রতিদিনই ছুটতে হয় নিউইয়র্কে। তাই ছোটাছুটি না করে মন দিয়ে কাজ করে অ্যাপসের উন্নতি ঘটানোর জন্য তিনি বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় বিশ কোটি টাকা (২২ লাখ ডলার) দিয়ে কিনেন একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট। নিউইয়র্কের অন্যতম অভিজাত এলাকা ম্যানহাটনে নিজের রোজগারের টাকা দিয়েই ফ্ল্যাটটি কিনেছিলেন তিনি। ওই ফ্ল্যাটে একা বসবাস করে অ্যাপস নিয়ে নানাভাবে গবেষণা করতেন তিনি। ঘাতকের দল সেই ফ্ল্যাটেই সম্ভাবনার এই বরপুত্রকে নির্মমভাবে খুন করে।