স্টুডেন্ট লোন মওকুফের আবেদন শুরু

নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী : ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এককালীন লোন ফরগিভনেসের জন্য আবেদন শুরু হয়েছে ১৭ অক্টোবর। আবেদন গ্রহণ করার বিষয়ে ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এই ঘোষণার পর যারা বাকি ছিলেন, তারাও আবেদন করা শুরু করেন। অত্যন্ত সহজভাবে মাত্র দুই মিনিটের মধ্যে আবেদনপত্রটি সম্পন্ন করার সুযোগ রাখা হয়েছে। এর আগে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত এই আবেদন আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করা না হলেও বেটা সিস্টেমে শুরু করা হয় পরীক্ষামূলকভাবে। ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন থেকে বলা হয়েছিল, এই আবেদন যারা করতে পারবেন, তাদের আবেদন যখন আনুষ্ঠানিকভাবে প্রসেস করা শুরু হবে, তখন করা হবে। নতুন করে আর জমা দিতে হবে না। আর যদি কেউ সিস্টেমে আবেদন জমা দিতে না পারেন, তাহলে পরে আবার চেষ্টা করার কথা বলা হয়। কেউ না পারলে যখন আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে, তখন আবেদন করতে পারবেন। কিন্তু পরীক্ষামূলকভাবে আবেদন শুরু হওয়ার পরই আট মিলিয়ন ঋণগ্রহীতা আবেদন করেন।
১২ অক্টোবর থেকে ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন লোনগ্রহীতাদের কাছে ইমেইল পাঠানো শুরু করেছে। চিঠিতে লোনগ্রহীতারা ঋণ মওকুফের জন্য কীভাবে আবেদন করবেন এবং তাদেরকে কী কী করতে হবে, তা উল্লেখ রয়েছে। যদিও কেউ কেউ বলেছিলেন, ২০২০ কিংবা ২০২১ সালে যারা লোন নিয়েছিলেন কিংবা যাদের ইনকামের আপটুডেট তথ্য ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশনের কাছে আছে, তাদেরকে কোনো কিছুু করতে হবে না। স্বয়ংক্রিয়ভাবে লোন মওকুফ হয়ে যাবে। সূত্র জানায়, ২০২১ ও ২০২২ সালে যারা ফাফসা ফাইল করেছেন, তাদেরকে ইমেইল করা হয়েছে এবং কীভাবে আবেদন করতে হবে, সেটাও উল্লেখ করা হয়েছে। আবেদনে তথ্য হিসেবে নাম, সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বর, জন্মতারিখ, ফোন নম্বর, ইমেইল অ্যাড্রেস ইত্যাদি দিতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে লোন মওকুফ পাওয়ার জন্য যারা যোগ্য হতে পারেন, তাদের ইনকাম ক্রাইটেরিয়া দেওয়া হয়েছে। ওই ক্রাইটেরিয়ার মধ্যে যারা পড়বেন, তারা আবেদন সাবমিট করবেন। এরপর কনফারমেশন ইমেইল আসবে। লোন মওকুফের যোগ্য হলে তা মওকুফ হবে। এর বাইরে যাদের প্রয়োজন হবে, তাদের কাছে আয় প্রমাণের জন্য তথ্য চাওয়া হবে। এই আয়ের ভিত্তিতে যোগ্য হলে তারা লোন মওকুফ পাবে। এখন যারা আবেদন করবেন, ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে তাদের লোন মওকুফের চেষ্টা করবে ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন। যাদের লোন ১০ হাজার ডলার বা এর কম এবং ইনকাম একক ১ লাখ ২৫ হাজার, জয়েন্টলি ২ লাখ ৫০ হাজার, তারা পেল গ্র্যান্ট পেয়ে থাকলে ২০ হাজার ডলার মওকুফ পাবেন। পেল গ্র্যান্ট না পেয়ে থাকলে ১০ হাজার ডলার মওকুফ হবে। এর মধ্যে সাবসিডাইস, আন-সাবসিডাইস, প্যারেন্ট লোনসহ বিভিন্ন ধরনের লোন রয়েছে। লোন মওকুফ হওয়ার পর যদি কারো লোনের অবশিষ্ট অর্থ থাকে, তবে সেই অর্থ পরিশোধ করতে হবে। লোন সার্ভিসারের মাধ্যমে এটি পরিশোধ করা যাবে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগও করা যাবে। কার লোন সার্ভিসার কে, এটা জানা যাবে যাদের ফাফসার আইডি আছে, সেই অ্যাকাউন্ট লগিং করে। ফেডারেল লোন সাধারণত ম্যানেজ করা হয় লোন সার্ভিসারের মাধ্যমে। এই লোন সার্ভিসাররা সমুদয় লোন মওকুফ হয়ে গেলে ডিসচার্জ লেটার দেবে। কারো লোনের অর্থ বাকি থাকলে সেই অর্থ কবে থেকে পেমেন্ট করতে হবে, কত করে করতে হবে এবং কত দিনে শোধ করতে হবে, সেটা তারা জানাবে। কেউ চাইলে তাদের লোনের সমুদয় অর্থ এককালীন পরিশোধ করে দিতে পারবেন অথবা কেউ চাইলে সময় অনুযায়ীও পরিশোধ করতে পারবেন।