সড়কে আবর্জনা ছুড়ে মিয়ানমারে বিক্ষোভ, নিহত ছাড়াল ৫০০

রাস্তায় আবর্জনা ছুড়ে অসহযোগ আন্দোলন শুরু করেছে মিয়ানমারের মানুষজন -সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের পর সেখানে পাঁচশতাধিক বেশি বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। আজ মঙ্গলবার মিয়ানমারের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারস (এএপিপি) এমন তথ্য দিয়েছে। এ খবর দিয়েছে রয়টার্স ।

এদিকে রাস্তায় আবর্জনা ছুড়ে নতুন করে অসহযোগ আন্দোলন শুরু করেছে দেশটির সাধারণ মানুষজন। সামরিক বাহিনীর ক্ষমতা দখলের প্রতিবাদে মহাসড়ক ও গোল চত্বরগুলোতে ময়লা ফেলে রেখে আসছেন লোকজন।

সোমবারও সামরিক বাহিনীর সহিংসতায় ১৪ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়। এদের মধ্যে আটজনই ইয়াঙ্গুনের সাউথ দাগোন এলাকার। বিক্ষোভকারীরা সেখানে বালুর বস্তার আড়ালে থাকলেও তাদের ওপর গোলার মতো বিশেষ ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করা হয়।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর লোকজন সহিংস বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে ‘দাঙ্গা অস্ত্র’ ব্যবহার করেছে।

সাউথ দাগোনের এক বাসিন্দা রয়টার্সকে বলেছেন, রাতভরই সেখানে অভিযান চালানো হয়েছে এবং গুলি ছুড়া হয়েছে।

এএপিপি জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত তারা ৫১০ জন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করতে পেরেছে। তবে নিহতের সত্যিকার সংখ্যা আরও বেশি হবে বলে তাদের ধারণা।

গণতান্ত্রিক সরকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলনে জান্তা সরকারের নিষ্ঠুর দমনপীড়নে দেশটির ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশ মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

এরই মধ্যে বাণিজ্যচুক্তি স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছে ওয়াশিংটন। আর সপ্তাহের শেষ দিনে প্রাণঘাতী দমনে শতাধিক লোক নিহত হওয়ার পর জান্তা সরকারকে চাপ দিতে ঐক্যবদ্ধ বৈশ্বিক ফ্রন্ট গঠনের আহ্বান জানান জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষকে গণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

ঠিকানা/এসআর