১৫ বছর পর ফেঞ্চুগঞ্জে ইউপি নির্বাচন

সিলেট : দীর্ঘ ১৫ বছর পর অনুষ্ঠেয় ফেঞ্চুগঞ্জ ইউপি নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। প্রধান দুটি রাজনৈতিক দল বিশেষ করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির অংশগ্রহণে নির্বাচন হয়ে উঠেছে জমজমাট। ২৯ মার্চ ফেঞ্চুগঞ্জের নবগঠিত দুটিসহ পাঁচটি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর থেকে প্রার্থীরা পুরোদমে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে পড়েছেন। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তারা সবার খোঁজখবর নিচ্ছেন, তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বিমলেন্দু কিশোর পাল জানিয়েছেন, চূড়ান্তভাবে চেয়ারম্যান পদে পাঁচ ইউনিয়নে ২১ জন প্রার্থী নির্বাচনে লড়ছেন। এর মধ্যে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে পাঁচ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাঁচজন করে প্রার্থী, জাতীয় পার্টির একজন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ১০ জন প্রার্থী রয়েছেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবারের নির্বাচনে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় ৭২ হাজার ৫৯৫ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এদের মধ্যে ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৭৮৩ জন, মাইজগাঁও ইউনিয়নে ১৯ হাজার ১৯২ জন, ঘিলাছড়া ইউনিয়নে ১৬ হাজার ৬৩৭ জন, উত্তর কুশিয়ারা ইউনিয়নে ১২ হাজার ৩২৭ জন ও উত্তর ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়নে ৯ হাজার ৬৫৬ জন ভোটার রয়েছেন।

ফেঞ্চুগঞ্জের ভোটার অধ্যাপক ফরিদ আহমদ জানান, আইনি জটিলতার কারণে প্রায় ১৫ বছর পর এবার ফেঞ্চুগঞ্জে ইউপি নির্বাচন হচ্ছে। আগের নির্বাচিত তিন চেয়ারম্যান ১৫ বছর করে দায়িত্ব পালন করেছেন। এবার সেই পরিস্থিতির অবসান হয়েছে। যে কারণে ফেঞ্চুগঞ্জের ভোটাররা বেজায় খুশি। ভোটের দিন পর্যন্ত পুরো উপজেলায় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন অধ্যাপক ফরিদ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগ মনোনীত ‘নৌকা’ প্রতীক পেয়েছেন ছাত্রলীগের উপজেলা সাবেক সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাসার আহমদ শাহ। বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ‘ধানের শীষ’ প্রতীক পেয়ে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান জাহিরুল ইসলাম মুরাদ, ‘লাঙ্গল’ প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন তরুণ সমাজকর্মী শেখ মোরশেদ আলম, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন কাজী বদরুদ্দোজা।

মাইজগাঁও ইউনিয়নে বিএনপির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান ছুফিয়ানুল করিম চৌধুরী। আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে রয়েছেন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী জুবেদ আহমদ চৌধুরী শিপু। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে ভোট যুদ্ধে লড়ছেন সমাজকর্মী ইমরান আহমদ চৌধুরী। ঘিলাছড়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে মাঠে আছেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আশরাফ চৌধুরী। বিএনপির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধে লড়ছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আপ্তাব আলী। আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধে লড়ছেন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা হাজী লেইছ চৌধুরী।

নবগঠিত উত্তর কুশিয়ারা ইউনিয়নে বিএনপির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন সাবেক ছাত্রদল নেতা আহমদ জিলু। মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মাঠে লড়ছেন প্রবাসী মনির আলী। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘ঘোড়া’ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন সমাজকর্মী আপ্তার আলী। ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন সাবেক চেয়ারম্যান মো. ফজলুর রহমান। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘অটোরিকশা’ প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে লড়ছেন শ্রমিক নেতা মো. বসারত আলী।

আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে মাঠে লড়ছেন আওয়ামী লীগ নেতা প্রবাসী মো. লুদু মিয়া। উত্তর ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘ঘোড়া’ প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে রয়েছেন তরুণ সমাজসেবক আতিকুর রহমান মিঠু। আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে লড়ছেন বিশিষ্ট আইনজীবী জসীম উদ্দীন আহমদ। বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে মাঠে লড়ছেন বিএনপির উপজেলার সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ এমরান উদ্দীন। স্বতন্ত্র প্রার্থী ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়ছেন আবদুল ওয়াদুদ সোহেল, ও ‘মোটরসাইকেল’ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন সত্য কুমার বিশ্বাস।