১৬.৫৮% প্রবৃদ্ধি প্রবাসী আয়ে

ঢাকা অফিস : চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) প্রবাসীদের পাঠানো আয়ে বড় অঙ্কেও প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এ সময়কালে প্রবাসীরা ৪৫১ কোটি মার্কিন ডলার বা ৩৮ হাজার ১০৯ কোটি টাকা দেশে পাঠিয়েছেন, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৬ দশমিক ৫৮ শতাংশ বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
চলতি বছরের সেপ্টেম্বওে প্রবাসীরা দেশে ১১৭ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১১৪ কোটি ডলার। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে এক ডলারের বিপরীতে ৭৮ দশমিক ৭ টাকা পাওয়া যেতো। এ সময়ের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে টাকা প্রায় সাত শতাংশ অবমূল্যায়ন হয়েছে।

চলতি অর্থবছরের বাজেটে সরকার প্রবাসী আয়ে দুই শতাংশ নগদ প্রণোদনা দেয়ার ঘোষণা দেয়, যা ১ জুলাই থেকেই বাস্তবায়নের কথা ছিল। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রণোদনার অর্থ চেয়েও কোনো তহবিল এখনো পায়নি। প্রবাসী আয়ে প্রণোদনা বাবদ ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকার তহবিল গঠনের কথা রয়েছে। শুধু যেসব প্রবাসী ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠাবেন, তারাই এ তহবিল থেকে দুই শতাংশ হারে নগদ প্রণোদনা পাবেন।
তবে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা এখনো বিতরণ শুরু না হলেও চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই দেশের ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসী আয়ে প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এ ছাড়া ডলারের বিপরীতে টাকার সামান্য অবমূল্যায়নও প্রবাসী আয় বৃদ্ধিতে ভ‚মিকা রাখছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এর বাইরে হুন্ডি বন্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের তৎপরতাও বৈধপথে প্রবাসী আয় বাড়াচ্ছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে এক মার্কিন ডলারের বিপরীতে ৮৩ দশমিক ৯ টাকা পাওয়া যেতো, যা এখন ৮৪ দশমিক ৫ টাকায় উন্নীত হয়েছে।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে দেশে প্রবাসী আয় এসেছিল ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ খাতে প্রবৃদ্ধি হয় ৯ দশমিক ৪৮ শতাংশ। আর চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৫ হাজার ৪২১ কোটি টাকা বেশি পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।