২০২২ সালে রাজধানীতে ১৭৩ খুন, মামলা ২৮৭৪৯টি

ঠিকানা অনলাইন : ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) আওতাধীন এলাকার আট বিভাগে থানার সংখ্যা ৫০টি। উত্তরা, মিরপুর, তেজগাঁও, রমনা, ওয়ারী, মতিঝিল, লালবাগ, গুলশান—এই আট বিভাগের মধ্যে মিরপুর ও ওয়ারী বিভাগ ঘনবসতিপূর্ণ। অপরাধ করে অপরাধীরা সাধারণত এই দুই জায়গায় পালিয়ে থাকে। এছাড়া এই দুই বিভাগে অপরাধ সংঘটনের মাত্রাও বেশি। ডিএমপির একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সূত্রে এসব কথা জানা গেছে।

দিন যত যাচ্ছে রাজধানীতে বেড়ে চলছে নানা ধরনের অপরাধের ঘটনা। বিভিন্ন থানায় মামলার সংখ্যা বাড়ছে। গ্রেফতার হচ্ছে আসামি। কিছু ক্ষেত্রে হত্যাকাণ্ডের মোটিভ কিংবা রহস্য উন্মোচন করতে হিমশিম খেতে হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। ২০২২ সালে রাজধানীতে অপরাধ সংঘটনের মামলা বেশি হয়েছে মার্চ মাসে। ওই মাসে মামলা হয় ২৬৪৬টি।

ডিএমপির তথ্য বলছে, ২০২১ সালে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে ১৫২টি, পরের বছর তা বেড়ে হয় ১৭৩টি। এছাড়া বিভিন্ন মামলায় ২০২১ সালে গ্রেফতার করা হয় প্রায় ৫০ হাজার ব্যক্তিকে, ২০২২ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৬১ হাজার ৪৯৪। ২০২২ সালে মামলা দায়ের হয়েছে ২৮ হাজার ৭৪৯টি। ২০২১-এর চেয়ে ২০২২ সালে মামলার সংখ্যা বেড়েছে ১৫ শতাংশ। চুরির মামলা বেড়েছে ২৮ শতাংশ। এছাড়া ২০২২ সালে মাদক মামলার সংখ্যা ছিল ১৬ হাজার ৩৫টি, যা মোট মামলার ৫৬ শতাংশ। অপরাধপ্রবণ বিবেচনায় ২০২২ সালে ১৭৩টি খুনের মধ্যে মিরপুরে ৩১ জন এবং ওয়ারীতে ৩৬ জন খুন হয়েছে।

২০২২ সালে সংঘটিত অপরাধের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ডাকাতির মামলা হয়েছে ২৭টি, হত্যাকাণ্ড ঘটেছে ১৭৩ টি। দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে ১৬৫টি। এছাড়া ধর্ষণের ঘটনায় ৪৯৭টি, নারী নির্যাতনের ঘটনায় ১০৯৪টি, শিশু নির্যাতনের ঘটনায় ৪০৫টি, গাড়ি চুরির ঘটনায় ৩৮৭টি, গরু চুরির ঘটনায় ছয়টি মামলা হয়েছে। এছাড়া অন্যান্য ছোটখাটো চুরির ঘটনায় মামলা হয়েছে ১১৯৩টি।

এছাড়া ২০২২ সালে ডিএমপির বিভিন্ন থানায় অস্ত্র আইনে ৭০টি, বিস্ফোরক আইনে ১২৬টি মামলা দায়ের হয়েছে। চোরাচালানের ঘটনায় মামলা হয়েছে ১৬৯টি। সিঁধেল চুরির (শহরে গ্রিল কেটে বাসাবাড়িতে চুরি) ঘটনা ঘটেছে ৭১৩টি। অপহরণের ঘটনায় মামলা হয়েছে ৪৯টি। ২০২২ সালে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডসহ নানান ধরনের অপরাধ প্রতিরোধ করতে গিয়ে ৮৮ জন পুলিশ আহত হয়, এসব ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে।

ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম) এ কে এম হাফিজ আক্তার গণমাধ্যমকে বলেন, যেসব জায়গায় অপরাধ সংঘটনের মাত্রা বেশি সেখানে আরও কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ২০২১ সালের চেয়ে ২০২২ সালে সংঘটিত নানা ধরনের অপরাধের সংখ্যা বাড়লেও অনেক অপরাধের রহস্য উন্মোচন করে অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা ডিএমপির বিভিন্ন থানাসহ অন্যান্য ইউনিট নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। প্রতিনিয়ত অপরাধী গ্রেফতার করা হচ্ছে।

ঠিকানা/এসআর