৫৭ জেলা পরিষদে ভোটগ্রহণ শুরু, শেষ হবে দুপুর ২টা

ফাইল ছবি

ঠিকানা অনলাইন : বাংলাদেশের ৫৭টি জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। স্থানীয় সময় আজ ১৭ অক্টোবর (সোমবার) সকাল ৯টায় এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে একটানা চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

এদিকে সকাল থেকেই কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন ভোটাররা। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দিতে উৎসুক রয়েছেন তারা। তবে সকালে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিতির এ হার বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।
এদিকে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ পরিবেশে জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কমিশন থেকে সরাসরি মনিটরিংয়ে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৯২ জন, সদস্য পদে ১ হাজার ৪৮৫ জন ও সংরক্ষিত পদে ৬০৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এতে মোট ভোটার ৬০ হাজার ৮৬৬ জন। ইসির যুগ্ম সচিব (জনসংযোগ) এসএম আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সিসি ক্যামেরা ও ইভিএম মেশিন যথাযথভাবে সচল রাখার স্বার্থে এবং ভোটাররা যাতে সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারেন, সে জন্য ভোটকেন্দ্র সংশ্লিষ্ট উপজেলা সদরে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে।

ইসি জানিয়েছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনে ২৬ জন চেয়ারম্যান, ১৮ নারী সদস্য এবং ৬৫ সাধারণ সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচন আদালতের নির্দেশনায় স্থগিত করা হয়েছে।

ভোলা ও ফেনী জেলার সব পদে প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এ দুই জেলায় কোনো নির্বাচনের প্রয়োজন পড়বে না। এ নির্বাচনে ৫৭টি জেলায় সাধারণ ওয়ার্ড সংখ্যা ৪৪৮টি ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১৬৬টি। এতে ভোটকেন্দ্র ৪৬২টি ও ভোটকক্ষ ৯২৫টি।

ইসি জানিয়েছে, ভোটকেন্দ্রের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রতিটি কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাত সদস্য মোতায়েন করেছে ইসি। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রের জন্য পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ন আনসারের সমন্বয়ে একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স ও র‌্যাবের একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স মোতায়েন রয়েছে।

এ ছাড়া বৃহত্তর ১৯ জেলায় দুই প্লাটুন ও অন্যান্য জেলায় এক প্লাটুন বিজিবি রিজার্ভ ফোর্স হিসেবে মোতায়েন থাকছে। এ ছাড়া পর্যাপ্ত সংখ্যক নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ভোটকক্ষে ভোটাররা যাতে মোবাইল ফোন নিয়ে প্রবেশ করতে না পারে অথবা ভোটকক্ষে ভোটদান বিশেষ করে গোপন কক্ষে ভোট দেয়ার ছবি তুলতে না পারে তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হয় গত ২৩ আগস্ট। পার্বত্য তিন জেলা ছাড়া দেশের ৬১টি জেলা পরিষদ নির্বাচনের লক্ষ্যে এ তফসিল ঘোষণা করা হয়।

ঠিকানা/এসআর